কুমিল্লাকে ১৮২ রানের লক্ষ্য দিল রংপুর

0
49

শুরুতেই মোহাম্মদ শাহজাদ ঝড়ে ৮ ওভারেই ৮৬ রান তুলে ফেলেছিল রংপুর রেঞ্জার্স। ফলে বিশাল সংগ্রহের আভাস দিয়েছিল তারা। তবে মাঝপথে নিয়মিত উইকেট হারালে ততটা সম্ভব হয়নি। কিন্তু পুঁজিটা একেবারে মন্দও হয়নি। শাহজাদের বড় ও মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যানদের ছোট ছোট স্কোরে ১৮১ রান সংগ্রহ করেছে রংপুর।

বুধবার (১৮ ডিসেম্বর) চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং নেন রংপুর অধিনায়ক মোহাম্মদ নবী। তার সিদ্ধান্তকে যৌক্তিক প্রমাণ করে দলকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার মোহাম্মদ শাহজাদ ও নাঈম শেখ। দারুণ শুরুর পর দলীয় ৪৯ রানে রানআউটে কাটা পড়েন নাঈম।

মাত্র ২১ বলেই ফিফটি তুলে নেন শাহজাদ। এবারের বিপিএলে এটি দ্বিতীয় দ্রুততম ফিফটি। প্রথমটি খুলনা টাইগার্সের রহমানউল্লাহ গুরবাজের। চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে মাত্র ১৮ বলে হাফসেঞ্চুরি করেন তিনি।

অবশ্য ফিফটির পর বেশিক্ষণ শাহজাদ ঝড় চলেনি। সানজামুল ইসলামের শিকার হয়ে ফেরেন তিনি। ফেরার আগে ২৭ বলে ৭ চার ও ৪ ছক্কায় ৬১ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন রংপুরের আফগান ওপেনার। এর কিছুক্ষণ পরই রানআউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন আল-আমিন। এতে রানের চাকা স্লো হয়ে যায় তাদের।

পরে মোহাম্মদ নবীকে নিয়ে খেলা ধরার চেষ্টা করেন টম অ্যাবল। তবে রানের গতি একটু বাড়াতে গিয়ে ২৫ বলে ২৫ রান করে সৌম্য সরকারের বলে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন তিনি। সঙ্গী হারিয়ে বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে পারেননি নবী। খানিক বাদে মুজিব-উর রহমানের বলে ২৬ রান করে ফেরত আসেন তিনি।

লুইস গ্রেগরি চেষ্টা করলেও বেশি কিছু করতে পারেননি। আল-আমিনের বলে বিদায়ের আগে ১২ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ২১ রানের ক্যামিও খেলেন এ ব্যাটার। পরক্ষণেই মুজিবের বলে প্লেড অন হন জহুরুল ইসলাম।

এতদসত্ত্বেও শুরুটা শুভ হওয়ায় রানের গতি খুব একটা কমেনি রংপুরের। অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে রানআউটে ফিনিশ হন নাদিফ চৌধুরী। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৮১ রান করে তারা। কুমিল্লার হয়ে মুজিব-উর রহমান নেন সর্বোচ্চ ২ উইকেট।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here